Breaking News
Home | বিডিটুডে | প্রেমিকার সাথে অনৈতিক কর্ম : শাস্তি লাখ টাকা

প্রেমিকার সাথে অনৈতিক কর্ম : শাস্তি লাখ টাকা

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা দক্ষিন চাঁদখানা সারোভাষা গ্রামে এক তরুণকে অনৈতিক কর্মের শাস্তি হিসেবে একলাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল রোববার সারোভাষা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রেমিকার সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকাবস্থায় ধরা পড়ার পর গ্রাম্য সালিশে প্রেমিক তরুণকে এ জরিমানা করা হয়।

জানাযায়, সারোভাষা গ্রামের জাহার উদ্দিনের মেয়ে দশম শ্রেণীর ছাত্রীর সাথে ওই গ্রামের মনিরুজ্জামানের ছেলে অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র শাকিল আহম্মেদের প্রেম ছিলো। প্রেমের সম্পর্কের কারনে তারা দুইজন প্রায়ই অনৈতিক কর্মে লিপ্ত হতো।

এরই ধারাবাহিকতায় ১ মে রাতে প্রেমিক প্রেমিকা অনৈতিক কাজে লিপ্ত হলে এলাকাবাসি তাদের ধরে ফেলে। পরে প্রেমিকাকে বিয়ের জন্য প্রেমিক শাকিলকে চাপ দেয়। কিন্তু শাকিল বিয়ে করতে রাজি না হলে তার পরের দিন প্রেমিকা তার বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীর মর্যাদার জন্য অনশন শুরু করে।

এ ঘটনায় গত রোববার ছেলের বাড়ীর উঠানে একটি সালিশ বৈঠক বসে। বৈঠকে চাঁদখানা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফিজার রহমান, ৬নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার সিরাজুল ইসলামসহ এলাকার আরো ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিল। সালিশ বৈঠকে বিচারকরা মেয়েকে অন্যত্র বিয়ে দেয়ার জন্য প্রেমিক শাকিলের পিতাকে শাস্তি হিসেবে এক লাখ টাকা হিসেবে জরিমানা করেন।

ধর্ষণ মামলায় কারাগারে

গলাচিপা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা

ছাত্রীর ধর্ষণের মামলায় গলাচিপার সহকারী শিক্ষক কম্পিউটার রুহুল আমিন প্যাদাকে সোমবার আদালতে প্রেরণ করেছে গলাচিপা থানা পুলিশ। রোববার রাতে তাকে পটুয়াখালীর মহিলা কলেজের এলাকা থেকে রাতে আটক করে পটুয়াখালী থানা পুলিশ। ওই রাতে শিক্ষক রুহুল আমিন প্যাদাকে গলাচিপা থানায় পাঠিয়ে দেয়া হয়। সোমবার সকালে শিক্ষকের বিরুদ্ধে নারী শিশু ও ধর্ষনের মামলা দায়ের করে ছাত্রীর মা মর্জিনা বেগম।

জানা গেছে, রুহুল আমিন গলাচিপা উপজেলার গুয়াবাড়িয়া এবি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিষয়ের একজন সহকারী শিক্ষক। সে উপজেলার চিকনিকান্দি ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের আব্দুল করিম প্যাদার পুত্র। এদিকে, কলাগাছিয়া ইউনিয়নের বাঁশবাড়িয়া গ্রামের আফজাল হোসেনের মেয়ে গুয়াবাড়িয়া এবি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে থেকে ২০১৭ সালে এসএসসি বিজ্ঞান শাখা থেকে পাশ করে পটুয়াখালী সরকারী মহিলা কলেজে ভর্তি হয়। স্কুলে পড়া অবস্থায় ওই শিক্ষকের কু নজর পরে ছাত্রীর উপর। ফলে শিক্ষক ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে অনৈতিক কাজের সাথে বাধ্য করা হয় বলে ধর্ষিতার পারিবারিক সূত্র দাবি করে।

গুয়াবাড়িয়া এবি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোশাররফ হোসেন সবুজ জানান, রুহুল আমিন প্যাদা তার বিদ্যালয়ের শিক্ষক । তবে অনৈতিক কাজের জন্য কারাগরে গেলে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ডেকে তার বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: জাহিদ হোসেন জানান, আটককৃত শিক্ষককের বিরুদ্ধে নারী শিশু ও ধর্ষনের মামলা হয়েছে। তাকে গলাচিপা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যজিষ্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। আদালতের বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে।

About admin

Check Also

সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদের হুমিকতে সপরিবারে আত্মহত্যার হুমকি

কুমিল্লায় বসতভিটা থেকে উচ্ছেদের আশংকায় কামাল উদ্দিন আহাম্মদ ওরফে রাজা কামাল নামের এক ব্যক্তি তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *