এদিকে রিফাত হ ত্যা র বিচারের দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠেছে সারা দেশ। এ ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে নানা রকম কথা বলছে লোকজনকেউবলছেন নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল খু নি নয়ন বন্ডের। আবার কেউ বলছেন- রিফাত শরীফের আগে মিন্নির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নয়ন বন্ডের। ফেসবুকে মিন্নির সঙ্গে নয়ন বন্ডের কয়েকটি ছবি ছড়িয়ে পড়ায় এ বিতর্ক চলছে।এ ব্যাপারে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি গণমাধ্যমকে বলেন, নয়ন আমাকে খুব উ ত্ত্য ক্ত করতো। আমাকে হু ম কি দিত এবং অ স্ত্র দেখিয়ে ভয় দেখাত। আমার ভাই কলেজ রোড এলাকার একটি স্কুলে পড়ে।নয়ন আমার স্কুল পড়ুয়া ভাই এবং বোনকে মে রে ফে লা র হু ম কি দেয়। আমার বাবাকেও বিভিন্ন সময়ে হু ম কি দিত। একদিন অ স্ত্রে র মুখে আমাকে জি ম্মি করে একটি বাসায় নিয়ে যায় নয়ন।
পরে সেখানে বসে একটি কাগজে আমার স্বাক্ষর নেয় সে। তবে সেই স্বাক্ষর দিয়ে নয়ন কিছু করেছে কি-না আমি জানি না। মিন্নি আরও বলেন, যারা আমার নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নোংরা মন্তব্য করেছে, আমি তাদের শাস্তি চাই। মিন্নি বলেন, আমার বিয়ে হয়েছে একমাত্র রিফাত শরীফের সঙ্গে। এ ছাড়া আমার আর কখনো কারও সঙ্গে বিয়ে হয়নি। যেহেতু বিয়েই হয়নি, ডিভোর্স হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। রিফাতই আমার স্বামী এবং এটাই সত্য। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটাই দাবি করি, যারা আমার স্বামীকে হ ত্যা করেছে আমি তাদের ফাঁসি চাই। এর আগে গত ৭ জুন নিজের ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন মিন্নি। সেখানে তিনি লেখেন, ‘তোরে ভুলে যাওয়ার লাগি আমি ভালোবাসিনি সব ভেঙ্গে যাবে এভাবে ভাবতে পারিনি তুই ছাড়া কে বন্ধু হায় বুঝে আমার মোন তুই বিহনে আর এ ভুবনে আছে কে আপন ? প্রসঙ্গত, বুধবার (২৬ জুন) বরগুনার কলেজ সড়কের ক্যালিক্স কিন্ডারগার্টেনের সামনে দিনে দুপুরে স্ত্রীর আয়েশা আক্তারের সামনেরিফাতশরীফকে কু পি য়ে মারাত্মক জ খ ম করে দু র্বৃ ত্ত রা। এই হামলার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। নি হ ত রিফাত শরীফ সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের দুলালশরীফের ছেলে। সুত্র-বি ডি ২৪ লাইভ।
"/>

এবার ঘা ত ক নয়নের সঙ্গে বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন মিন্নি !

ঘা ত ক নয়নের সঙ্গে বিয়ে নিয়ে- দেশ জুড়ে এখন শুধু একটাই আলোচনা। স্ত্রীর সামনে স্বামীকে খু ন। আর তাও দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখল শ খানেক লোক। কিন্তু কেউ এগিয়ে আসল না।
এ নিয়ে এরই মধ্যে উত্তাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। রিফাত শরীফের (২২) মৃ ত্যু র ঘটনায় বরগুনা জেলা জুড়ে চলছে শোকের মাতম। রিফাতকে এক নজড় দেখতে তার বাড়িতে বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছিল হাজারো মানুষ।
গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫ টায় রিফাতের বাড়িতে জানাজা নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দা ফ ন করা হয়।

এদিকে রিফাত হ ত্যা র বিচারের দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠেছে সারা দেশ। এ ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে নানা রকম কথা বলছে লোকজনকেউবলছেন নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল খু নি নয়ন বন্ডের।
আবার কেউ বলছেন- রিফাত শরীফের আগে মিন্নির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নয়ন বন্ডের। ফেসবুকে মিন্নির সঙ্গে নয়ন বন্ডের কয়েকটি ছবি ছড়িয়ে পড়ায় এ বিতর্ক চলছে।এ ব্যাপারে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি গণমাধ্যমকে বলেন, নয়ন আমাকে খুব উ ত্ত্য ক্ত করতো। আমাকে হু ম কি দিত এবং অ স্ত্র দেখিয়ে ভয় দেখাত। আমার ভাই কলেজ রোড এলাকার একটি স্কুলে পড়ে।নয়ন আমার স্কুল পড়ুয়া ভাই এবং বোনকে মে রে ফে লা র হু ম কি দেয়। আমার বাবাকেও বিভিন্ন সময়ে হু ম কি দিত। একদিন অ স্ত্রে র মুখে আমাকে জি ম্মি করে একটি বাসায় নিয়ে যায় নয়ন।

পরে সেখানে বসে একটি কাগজে আমার স্বাক্ষর নেয় সে। তবে সেই স্বাক্ষর দিয়ে নয়ন কিছু করেছে কি-না আমি জানি না।
মিন্নি আরও বলেন, যারা আমার নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নোংরা মন্তব্য করেছে, আমি তাদের শাস্তি চাই।
মিন্নি বলেন, আমার বিয়ে হয়েছে একমাত্র রিফাত শরীফের সঙ্গে। এ ছাড়া আমার আর কখনো কারও সঙ্গে বিয়ে হয়নি। যেহেতু বিয়েই হয়নি, ডিভোর্স হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। রিফাতই আমার স্বামী এবং এটাই সত্য।
আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটাই দাবি করি, যারা আমার স্বামীকে হ ত্যা করেছে আমি তাদের ফাঁসি চাই।
এর আগে গত ৭ জুন নিজের ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন মিন্নি। সেখানে তিনি লেখেন, ‘তোরে ভুলে যাওয়ার লাগি আমি ভালোবাসিনি সব ভেঙ্গে যাবে এভাবে ভাবতে পারিনি তুই ছাড়া কে বন্ধু হায় বুঝে আমার মোন তুই বিহনে আর এ ভুবনে আছে কে আপন ?
প্রসঙ্গত, বুধবার (২৬ জুন) বরগুনার কলেজ সড়কের ক্যালিক্স কিন্ডারগার্টেনের সামনে দিনে দুপুরে স্ত্রীর আয়েশা আক্তারের সামনেরিফাতশরীফকে কু পি য়ে মারাত্মক জ খ ম করে দু র্বৃ ত্ত রা।
এই হামলার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। নি হ ত রিফাত শরীফ সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের দুলালশরীফের ছেলে।
সুত্র-বি ডি ২৪ লাইভ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *