Home | লাইফ স্টাইল | সত্যিই কি কুকুরে কামড়ালে পেটে কুকুরের বাচ্চা হয়?

সত্যিই কি কুকুরে কামড়ালে পেটে কুকুরের বাচ্চা হয়?

অবাক হওয়ার মতো কথা হলেও, এই বিশ্বাস কিংবা কুসংস্কারটি কিন্তু এখনও ভারতের বহু প্রত্যন্ত প্রদেশের মানুষদের মধ্যে পাওয়া যায়৷ এবং এর জন্য ওঝারাই দায়ি, বলছেন ওয়াকিবহাল মহল৷পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় গত মাসে ১৮ বছর বয়সি শঙ্করী মাহাতোকে কুকুরে কামড়েছিল৷ কিন্তু ডাক্তারের কাছে না গিয়ে শঙ্করী যায় পাশের গ্রামের এক ওঝার কাছে৷

সে গ্রামের ৭০ বছর বয়সি ওঝা বুদ্ধেশ্বর সিং মেয়েটিকে জড়িবুটি মেশানো দই-চিঁড়ে খেতে দেন এবং বলেন যে, ঐ খেলেই তাঁর আর কুকুরের কামড় থেকে কোনো অসুখবিসুখ করবে না৷ খবর ডয়চে ভেলের।

শঙ্করী মাহাতোর বক্তব্য: ‘‘আমরা জানি, কুকুরে কামড়ালে মানুষের পেটে কুকুরের বাচ্চা হয়৷ তা থেকেই জলাতঙ্ক ঘটে আর মানুষ মরে যায়৷ ওঝা যে ওষুধ দিয়েছে, তার জন্যেই আমি বেঁচে গেছি৷”

শঙ্করীর মা মালতী মাহাতো জানান যে, তাঁকেও বছর আটেক আগে কুকুরে কামড়েছিল এবং তিনি বুদ্ধেশ্বর সিং-এর ওষুধ খেয়ে সেরে ওঠেন৷

ডাক্তারি শাস্ত্রে নিরক্ষর, সরল মানুষজনের এই অদ্ভুত বিশ্বাসটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘পাপি প্রেগন্যান্সি সিনড্রোম’ বা পিপিএস অর্থাৎ ‘পেটে কুকুরের বাচ্চা রোগ’৷

পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, বিহার, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, ছত্তিশগড় ইত্যাদি রাজ্যে হাজার হাজার মানুষ এই আজগুবি রোগের কথা বিশ্বাস করেন৷

মনস্তত্ত্ববিদ কুমার কান্তি ঘোষ প্রায় দু’দশক ধরে পিপিএস নিয়ে গবেষণা করেছেন৷ তিনি বলেন, আসলে এই কুসংস্কারের পিছনে রয়েছে গণ-হিস্টিরিয়া৷

মালদা সরকারি হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগের প্রধান ড. ঘোষ বলেন, তাঁদের হাসপাতালে তাঁরা একাধিকবার পিপিএস-এর ঘটনা দেখেছেন৷ পেট পরীক্ষা করে কিছুই না পাওয়া যাবার পর রোগীদের মানসিক চিকিৎসার জন্য তাঁর বিভাগে পাঠাতে হয়েছে৷

ওঝা বুদ্ধেশ্বর সিং কোনোদিন স্কুল-পাঠশালার মুখ দেখেননি৷ তিনি বলেন, ‘‘কুকুরে কামড়ানোর হপ্তা দুয়েক বাদে পেটে কুকুরের বাচ্চা জন্ম নেয়৷ তারা নাকি পেটের মধ্যেই লাফালাফি, দৌড়োদৌড়ি করে – আর তাদের সঙ্গে রোগীও ছটফট করে৷ জল দেখলে রোগী তাতে ঐ কুকুরের বাচ্চাদের মুখ দেখে৷ তারপর নিজেই চারদিকে ছুটোছুটি করে পাগলা কুকুরের মতো ডাকতে ডাকতে মারা যায়৷”

কুকুরে কামড়ানোর সাত দিনের মধ্যে বুদ্ধেশ্বর সিংয়ের ওষুধ খেলে আর নাকি কুকুরের বাচ্চা জন্মাতে পারে না, আর জন্মালেও ওঝার ওষুধের গুণে সেসব বাচ্চা মারা যায়, রোগীও প্রাণে বেঁচে থাকে৷

এখন প্রশ্ন হলো, নিরক্ষরতা আর কুসংস্কারের কোনো ভালো ওষুধ ডাক্তারদের জানা আছে কিনা৷

About admin

Check Also

সকালে নিয়মিত নাস্তা না করার ভয়ঙ্কর পরিণতি

কাজের চাপ প্রায়ই সকালের ব্রেকফাস্ট খাওয়া হয় না অনেকেরই। কিন্তু তার ফল যে কী মারাত্মক …

Leave a Reply