Breaking News
Home | আন্তর্জাতিক | চোখে ট্যাটু করিয়ে অন্ধ হতে বসেছেন কানাডার মডেল

চোখে ট্যাটু করিয়ে অন্ধ হতে বসেছেন কানাডার মডেল

কানাডার ২৪ বছর বয়সী মডেল ক্যাট গ্যালিঙ্গার। এমনিতেই তার সারা শরীরে রয়েছে অসংখ্য ট্যাটু। এবার তার ইচ্ছে হয়েছিল চোখে ট্যাটু করানোর। ক্যাটের দাবি, বা-চোখের সাদা অংশে বেগুনি রঙ ইঞ্জেক্ট করে অভিনব ‘স্ক্লেরা ট্যাটু’ করাতে গিয়েই ঘটেছে বিপত্তি। চোখে সংক্রমণ হয়ে এখন প্রায় আংশিক দৃষ্টিহীন হয়ে পড়েছেন ক্যাট। চোখ থেকে গড়িয়ে পড়ছে বেগুনি রঙের ফ্লুইড।

টাইম ম্যাগাজিনের খবর অনুযায়ী, ক্যাট জানিয়েছেন গত মাসেই চোখে ‘স্ক্লেরা ট্যাটু’ করিয়েছিলেন তিনি। তার প্রাক্তন প্রেমিকের পরামর্শেই এই ট্যাটু করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ক্যাট। তবে একই ধরণের ট্যাটু প্রেমিকের চোখে কেনো সমস্যা সৃষ্টি না করলেও চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ক্যাটের চোখের পরিস্থিতি বেশ খারাপ। তার চোখের ছবি নিজেই ফেসবুকে শেয়ার করেছেন ক্যাট। মডেলের অভিযোগ, প্রাক্তন প্রেমিককে বিশ্বাস করে তার কাছেই ওই ট্যাটু করিয়েছিলেন তিনি। তবে ট্যাটু শিল্পীর প্রেমিক নাকি, তার চোখে বড় সূঁচ ব্যবহার করে ট্যাটু তৈরি করেছিলেন।

ট্যাটু করানোর পর থেকেই তার চোখে অসম্ভব ব্যথা শুরু হয়। বা-চোখ ফুলে গিয়ে চোখের থেকে রঙিন ফ্লুইড গড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এর পরই হাসপাতালে যান ক্যাট। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, আপাতত ক্যাটকে অ্যান্টিবায়োটিক এবং স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসা চলছে। সোয়েলিং-এর জেরে বা-চোখের দৃষ্টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ওই মডেলের। পুরোপুরি ক্যাট এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারবেন কিনা তা নিয়ে অবশ্য কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি চিকিৎসকেরা। আর কেউ যাতে এ ধরনের ট্যাটু না করান তার জন্য ক্যাট নিজেই ফেসবুকে ভিডিও পোস্ট করে আবেদন করেছেন। প্রাক্তন প্রেমিকের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করার পরিকল্পনা রয়েছে তার।

About admin

Check Also

নেপালকে হুমকি দিলেন ভারতের হতাশ সেনাপ্রধান

ভারতের পুনেতে অনুষ্ঠিত ‘ভারতের পরিকল্পিত সামরিক মহড়ায়’ অংশগ্রহণ থেকে নেপাল শেষ মুহূর্তে সরে দাঁড়ানোয় ভারতের ব্যর্থ নেতৃবৃন্দ দারুণ ক্ষুব্ধ হয়েছেন। বিমসটেকের আরেক সদস্য দেশ থাইল্যান্ডও ভারতের পরিকল্পনাকে উপহাস করেছে।নেপাল নিজেও বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টি-সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কোঅপারেশানের (বিমসটেক) সদস্য। সার্কের বদলে এই সংস্থাকে সক্রিয় করতে চায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *