Home | সারাদেশ | এনাম মেডিকেল থেকে মুক্তি মিলল সেই নবজাতক ও মায়ের

এনাম মেডিকেল থেকে মুক্তি মিলল সেই নবজাতক ও মায়ের

চিকিৎসা বিল পরিশোধ করতে না পারায় প্রায় দুই মাস ধরে ঢাকার সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক নবজাতক ও তার মা বন্দিদশায় রয়েছে এমন একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে কয়েকটি গণমাধ্যম। গত ২৫ সেপ্টেম্বর জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকাটাইমসে ‘বিল বকেয়া, এনাম হাসপাতালে ‘বন্দী নবজাতক ও মা’ এই শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

এরপর থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ঘটনাটি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে এনাম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুরো চিকিৎসা বিলের প্রায় ৫ লাখ টাকা মওকুফ করে।

বুধবার বিকালে ঢাকা-১৯ আসনের সাংসদ ও এনাম মেডিকেলের স্বত্ত্বাধিকারী ডা. এনামুর রহমানের নির্দেশে ওই নবজাতক ও তার মা এ্যাপি আক্তারকে বাড়ি ফেরত পাঠানো হয় বলে ঢাকাটাইমসকে নিশ্চিত করেন এ্যাপির স্বামী আনিসুর রহমান।

এসময় সাংসদের স্ত্রী ও এনাম মেডিকেল কলেজের পরিচালক রওশন আরা বেগম উপস্থিত ছিলেন।

আনিসুর রহমান জানান, মানবিক দিক বিবেচনায় রেখে অবশেষে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদের বাড়ি ফিরে যেতে দিয়েছে। এ জন্য সাংসদ ও এনাম মেডিকেল কলেজের স্বত্ত্বাধিকারী ডা. এনামুর রহমানকে ধন্যবাদ জানাই।

তবে এ ব্যাপারে নিশ্চিতের জন্য হাসপাতালের পরিচালক ডা. আনোয়ারুল কাদের নাজিমের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ জুলাই প্রসব বেদনার কারণে স্ত্রী এ্যাপি আক্তারকে সাভারের এনাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করান স্বামী আনিসুর রহমান। পরে টানা নয়দিন ভর্তি থাকার পর ২৫ জুলাই এ্যাপি সিজারের মাধ্যমে একটি সন্তান জন্ম নেয়। এরপর গত ১৭ আগস্ট নবজাতক ও মা সুস্থ থাকার পর হাসপাতালের বিল ১২ লাখ টাকা পরিশোধ করতে না পারায় প্রায় দুই মাস ধরে তাদের নজরদারিতে রাখার বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। -ঢাকা টাইমস

About admin

Check Also

ইয়ার্কি করতে যেয়ে চোর হয়ে গেলাম, বিদায় পৃথিবী

মৃতদেহের পাশে বিষের খালি বোতল। নিহতদের মুখ দিয়ে তখনও বের হচ্ছে ফেনা ও লালা। তাদের পকেটে চিরকুট, তাতে লেখা, “ মা আব্বা তোমাদের খুব জ্বালিয়েছি, আমাকে মাফ করে দিও। টাকা আমি নিছিলাম ভুল করে, ইয়ার্কি করতে যেয়ে চোর হয়ে গেলাম। তোমরা সবাই মাফ করে দিও, বিদায় পৃথিবী। ’’ এই অবস্থায় ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রাম থেকে রিপন হোসেন (২৮) ও আব্দুল আওয়াল (২৭) নামে দুই বন্ধুর মৃতদেহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *