Home | অপরাধ | কিস্তির টাকা বাকি : শরীর ঝলসে দিল এনজিও কর্মী

কিস্তির টাকা বাকি : শরীর ঝলসে দিল এনজিও কর্মী

শরীয়তপুরে এনজিওর কিস্তির টাকা না দেয়ায় করা গরম পানিতে ঝলসে দেয়া হয়েছে মোহাম্মদ আলী নামে ৬০ বছরের এক বৃদ্ধর ডান হাত ও শরীরের কিছু অংশ। ৯ আগস্ট বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ভেদরগঞ্জ পৌরসভার ভেদরগঞ্জ বাজারের পশ্চিম পাশের চায়ের দোকানে ঘটনাটি ঘটলেও ১২ আগস্ট শনিবার দুপুরে বিষয়টি জানাজানি হয়।

ঘটনার পর প্রথমে মোহাম্মদ আলীকে ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তার অবস্থার অবনতি ঘটলে শুক্রবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক।

ঘটনার শিকার মোহাম্মদ আলী ভেদরগঞ্জ পৌরসভার গৈড্যা এলাকার মৃত আকরাম আলীর ছেলে। তিনি ভেদরগঞ্জ বাজারের পশ্চিম পাশে দীর্ঘদিন যাবত চা-পানের দোকান দিয়ে ব্যবসা করছেন।

ভেদরগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিচার্চ সোসাল অ্যাকশন (কারসা) নামে একটি বেসরকারি এনজিও থেকে গত জানুয়ারি মাসে চায়ের দোকানের ব্যবসা বাড়ানোর জন্য মোহাম্মদ আলী (৪৬ কিস্তিতে পরিশোধ) ২০ হাজার টাকা লোন নেন। আট মাসে ৩৩ কিস্তি মধ্যে ৩ কিস্তি দিতে না পারায় গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কারসার মাঠকর্মী মামুন বকেয়া কিস্তি তুলতে যান মোহাম্মদ আলীর কাছে।

তখন মোহাম্মদ আলী ‘আগামীকাল কিস্তি দেবেন’ বললে দুজনের মাঝে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে কিল-ঘুষি মেরে এবং দোকানে চায়ের জন্য গরম করা পানি মোহাম্মদ আলীর শরীরে ছুড়ে মারেন কারসার মাঠকর্মী মামুন। এতে মোহাম্মদ আলীর ডান হাত ও শরীরের কিছু অংশ ঝলসে যায়।

পরে স্থানীয়রা মোহাম্মদ আলীকে ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। কিন্তু তার অবস্থার অবনতি ঘটলে শুক্রবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক। এখন মোহাম্মদ আলী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসারত অবস্থায় রয়েছেন।

এ ঘটনায় ১০ আগস্ট বৃহস্পতিবার রাতে মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে ভেদরগঞ্জ গৈড্যা ব্রাঞ্চের ম্যানাজার ফারুক হোসেন ও ফিল্ড অফিসার মামুনসহ অজ্ঞাত নামা দুজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মোহাম্মদ আলী মুঠোফোনে জাগো নিউজকে বলেন, ফিল্ড অফিসার মামুন আমার কাছে কিস্তির টাকা চাইতে আসলে আমি কাল দেবো বলি। কিন্তু সে আমাকে বলে ম্যানেজার স্যারে টাকা দিতে বলছে, এখনি দিতে হবে। আমি টাকা দিতে না পারায়, আমাকে কিল-ঘুষি মারে এবং দোকানে থাকা চায়ের কেতলির গরম পানি আমার শরীরে ছুড়ে মারে। গরম পানিতে আমার শরীর ঝলসে যায়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কারসা ভেদরগঞ্জ গৈড্যা ব্রাঞ্চের ফিল্ড অফিসার মামুন বলেন, মোহাম্মদ আলীর কাছে কয়েক কিস্তি বকেয়া রয়েছে। কিস্তির টাকা চাইতে গেলে সে উত্তেজিত হয়ে আমাকে গরম পানি মারতে যায়। কিন্তু আমার গায়ে না লেগে তার নিজের শরীরে লেগেছে।

পাশের দোকানদার মো. জসিম উদ্দিন উকিল, মাইনুল ইসলাম ও স্থানীয় জাকির হোসেন বলেন, কিস্তির টাকার জন্য কারসার ফিল অফিসার মামুন বৃদ্ধ মোহাম্মদ আলী ভাইকে আমাদের সামনে গরম পানি মেরে ঝলসে দিল। এখনো মধ্যযুগীয় কায়দায় গরীবের উপর অত্যাচার হয়। আমরা এর সঠিক বিচার দাবি করছি।

ভেদরগঞ্জ থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আসলাম মিয়া বলেন, চা-পানের দোকানদার মোহাম্মদ আলীর কাছে কারসার ফিল্ড অফিসার মামুন টাকা চাইতে গেলে তাদের ভিতর তর্ক হয়। তর্কের এক পর্যায়ে মামুন কিল-ঘুষি মারে মোহাম্মদ আলীকে। মোহাম্মদ আলী চায়ের কেটলির হাতে নিলে মামুন কেটলিতে ধাক্কা দেয়। তখন গরম পানি মোহাম্মদ আলীর শরীরে পড়ে শরীর ঝলসে যায়।

তিনি বলেন, মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে ভেদরগঞ্জ গৈড্যা ব্রাঞ্চের ম্যানাজার ও ফিল্ড অফিসারসহ অজ্ঞাত নামা দুজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

About sarah

Check Also

পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতায় বেড়েছে ধর্ষণ নৃশংসতা

সম্প্রতি সময়ে বেড়েছে ধর্ষণ। গণমাধ্যমে প্রতিনিয়তই প্রকাশ হচ্ছে নারীর প্রতি এ নৃশংসতার খবর। ধর্ষণ কিংবা …

Leave a Reply